ঢাকা২০ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. Echt Geld Casino
  3. test2
  4. অর্থনীতি
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আরো
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. খেলাধুলা
  9. জাতীয়
  10. তথ্য প্রযুক্তি
  11. দেশজুড়ে
  12. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  13. বাণিজ্য
  14. বিনোদন
  15. মতামত

ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে আওয়ামী লীগের ভূমিকা

admin
জানুয়ারি ১৪, ২০২৪ ৭:২৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ড. গণেশ চন্দ্র সাহা অংকন

 

ডিজিটাল বাংলাদেশের ভিত্তিতে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাংলাদেশকে একটি স্মার্ট এবং উন্নত দেশে পরিণত করার মানসে নতুন আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে দেশ।

শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি ও বাণিজ্য প্রভৃতি ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার ব্যাপক হারে বেড়েছে, প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ। প্রত্যেকের হাতে এখন অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন এবং মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে চারগুণ। দুনিয়ার সব প্রান্তের খবর মুহূর্তেই এসে যাচ্ছে হাতের মুঠোয়। শতভাগ বিদ্যুতায়নের মাইলফলকে বাংলাদেশ ।

প্রযুক্তিগত অগ্রগতির ক্রমাগত বিবর্তিত ল্যান্ডস্কেপে, বাংলাদেশ একটি স্মার্ট এবং আরও সংযুক্ত জাতি তে পরিণত হওয়ার দিকে একটি রূপান্তরমূলক যাত্রার অভিজ্ঞতা অর্জন করছে।

দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার কেবল একটি প্রবণতা নয় বরং একটি কৌশলগত দৃষ্টিভঙ্গি যা জাতির ভবিষ্যতকে নতুন রূপ দেওয়ার সম্ভাবনা রাখে। ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’-এর দিকে এই দৃষ্টান্তমূলক পরিবর্তন নাগরিকদের কল্যাণে প্রযুক্তির শক্তি কে কাজে লাগাতে সরকারের অঙ্গীকারেরই প্রমাণ।

কানেক্টিভিটিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন:

এই স্মার্ট বিপ্লবের অন্যতম মূল স্তম্ভ হ’ল সংযোগ বৃদ্ধি। মোবাইল ডিভাইসের ব্যাপক অনুপ্রবেশ এবং ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির মাধ্যমে সমন্বিত ক্ষেত্রগুলোকে সংযুক্ত করতে এবং শহর-গ্রামীণ বিভাজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তথ্য এবং পরিষেবাগুলিতে ক্রমবর্ধমান অ্যাক্সেস যোগ্যতার সাথে, নাগরিকরা ডিজিটাল যুগে আরও সক্রিয়ভাবে অংশ নেওয়ার ক্ষমতা পেয়েছে।

ডিজিটাল অর্থনীতি ও উদ্ভাবন:

স্মার্ট ভবিষ্যতের দিকে বাংলাদেশের যাত্রার মধ্যে রয়েছে ডিজিটাল অর্থনীতি গড়ে তোলার ওপর জোরালো মনোযোগ। সরকারের উদ্যোগগুলির লক্ষ্য উদ্ভাবন এবং উদ্যোক্তাকে উত্সাহিত করা, এমন একটি পরিবেশ তৈরি করা যেখানে প্রযুক্তিগত অগ্রগতি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে চালিত করে।

বিভিন্ন শিল্পে ডিজিটাল সমাধানের প্রভাব কেবল দক্ষতাকে উন্নত করে না বরং জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় স্তরে ব্যবসা এবং বাণিজ্যের জন্য নতুন পথ উন্মুক্ত করে।

টেকসই জীবনযাপনের জন্য স্মার্ট সিটি:

স্মার্ট শহরের ধারণাটি প্রসারিত হচ্ছে স্মার্ট গ্রাম গড়ার প্রত্যয়ে, শহুরের পরিকল্পিত উদ্ভাবন এবং স্থায়িত্বের উদ্যোগ বহমান হচ্ছে সুদূর প্রত্যন্ত অঞ্চলে।

যেখানে ইনটেলিজেন্ট ট্র্যাফিক ম্যানেজমেন্ট থেকে শুরু করে বর্জ্য নিষ্পত্তি ব্যবস্থা, স্মার্ট প্রযুক্তির সংযোজন শহুরে বাসিন্দাদের জীবনযাত্রার মান বাড়িয়ে তুলছে। টেকসই জীবনযাত্রার দিকে মনোনিবেশ পরিবেশ-বান্ধব অনুশীলনের পথ প্রশস্ত করছে, শহরগুলিকে আধুনিক বিশ্বের চ্যালেঞ্জগুলির প্রতি আরও স্থিতিস্থাপক করে তুলছে।

প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষার ক্ষমতায়ন:

ভবিষ্যৎ স্মার্ট জাতি গঠনে শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাকে স্বীকৃতি দিয়ে বাংলাদেশ তার শিক্ষা ব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে প্রযুক্তিকে গ্রহণ করছে। শ্রেণিকক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির (আইসিটি) সংযোজন কেবল শিক্ষাকে আরও ইন্টারেক্টিভ করে তুলছে না বরং ডিজিটাল যুগের চাহিদার জন্য তরুণদের প্রস্তুত করছে। ডিজিটাল সাক্ষরতার প্রতি সরকারের অঙ্গীকার শিক্ষার্থীদের বৈশ্বিক অঙ্গনে প্রতিযোগিতামূলক হওয়ার জন্য ক্ষমতায়ন করছে।

দক্ষতার জন্য ই-গভর্নেন্স:

দক্ষ প্রশাসন বাংলাদেশের স্মার্ট রূপান্তরের কেন্দ্রবিন্দু। ই-গভর্নেন্স উদ্যোগগুলি প্রশাসনিক প্রক্রিয়াগুলিকে সুশৃঙ্খল করছে, আমলাতন্ত্রকে হ্রাস করছে এবং স্বচ্ছতা বৃদ্ধি করছে।

অনলাইন নাগরিক সেবা থেকে শুরু করে ডিজিটাল রেকর্ড-কিপিং, ভূমি ব্যবস্থাপনা, প্রযুক্তির মাধ্যমে সরকারি কার্যক্রমের দক্ষতা বৃদ্ধি করছে, যেটা আরও ভাল নাগরিক পরিষেবা সরবরাহের দিকে পরিচালিত করছে।

চ্যালেঞ্জ ও সুযোগ:

স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে যাত্রা প্রতিশ্রুতিতে পরিপূর্ণ হলেও চ্যালেঞ্জ ছাড়া নয়। ডিজিটাল বিভাজন, সাইবার নিরাপত্তা হুমকি এবং ক্রমাগত অবকাঠামো উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার মতো বিষয়গুলি অবশ্যই মোকাবেলা করতে হবে।

যাই হোক, এই চ্যালেঞ্জগুলি একটি টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক স্মার্ট রূপান্তর নিশ্চিত করার জন্য সহযোগিতা, বিনিয়োগ এবং কৌশলগত পরিকল্পনার সুযোগও উপস্থাপন করে।

পরিশেষে বলা যায়, বাংলাদেশের প্রযুক্তি গ্রহণ একটি স্মার্ট, আরও সংযুক্ত এবং টেকসই জাতি গঠনে একটি দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন। সারা দেশে স্মার্ট পরিবর্তনের অনুভূতি কেবল নতুন গ্যাজেট গ্রহণের বিষয়ে নয় বরং নাগরিকরা কীভাবে জীবনযাপন করে, কাজ করে এবং ইন্টারঅ্যাক্ট করে তার একটি বিস্তৃত রূপান্তরকে নির্দেশ করে।

প্রযুক্তিগত বিবর্তনের এই যুগে বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন উদ্ভাবন কীভাবে একটি জাতিকে একটি উজ্জ্বল ও স্মার্ট ভবিষ্যতের দিকে নিয়ে যেতে পারে তার একটি উজ্জ্বল উদাহরণ হিসাবে আবির্ভূত হতে চলেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঘোষিত “আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার” ইশতেহারের মাধ্যমে। এই ইশতেহারের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ বাংলাদেশকে একটি আধুনিক এবং প্রযুক্তিনির্ভর স্মার্ট দেশ তৈরি করতে দৃঢ়ভাবে প্রতিবদ্ধ।

 

ড. গণেশ চন্দ্র সাহা অংকন

বিভাগীয় প্রধান, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।