ঢাকা১২ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. Echt Geld Casino
  3. test2
  4. অর্থনীতি
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আরো
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. খেলাধুলা
  9. জাতীয়
  10. তথ্য প্রযুক্তি
  11. দেশজুড়ে
  12. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  13. বাণিজ্য
  14. বিনোদন
  15. মতামত

নারী মুক্তিযোদ্ধা সখিনার মনে তাজা সেই স্মৃতি

admin
মার্চ ২৬, ২০২৪ ৩:৪৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ডেস্ক:  কিশোরগঞ্জের হাওর অধ্যুষিত উপজেলা নিকলীর গুরুই গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন সখিনা বেগম। তাঁর বাবার নাম মৃত সোনাফর মিয়া এবং মায়ের নাম দুঃখী বিবি। সখিনা নিঃসন্তান। মুক্তিযুদ্ধের আগেই মারা যান তাঁর স্বামী কিতাব আলী। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি নেমে পড়েন সশস্ত্র যুদ্ধে। জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী বর্তমানে তাঁর বয়স ৯১ বছর। স্থানীয় মানুষ তাঁকে ‘খটকি বেগম’ বলেও ডাকেন। তিনি একজন তালিকাভুক্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা।

মুক্তিযুদ্ধের সময় যেসব নারী বীরত্বের সঙ্গে রণাঙ্গনে লড়াই করে সাহসিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম সখিনা বেগম। ১৯৭১ সালে দা দিয়ে কুপিয়ে পাঁচ রাজাকারকে হত্যা করেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা। তাঁর সাহসিকতার কথা এখনো স্থানীয় বাসিন্দাদের মুখে মুখে। শয্যাশায়ী সখিনার মনেও সেই স্মৃতি এখনো তাজা হয়ে আছে।

সখিনা, স্থানীয় একাধিক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বাসিন্দা জানান, মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি গুরুই এলাকায় বসু বাহিনীর নেতৃত্বাধীন মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে রাঁধুনির কাজ করতেন। কাজের ফাঁকে রাজাকারদের গতিবিধির বিভিন্ন খবর সংগ্রহ করে মুক্তিযোদ্ধাদের জানাতেন। নিকলী উপজেলাকে মুক্ত করার সময়ও সখিনা বেগম খবর সংগ্রহে সক্রিয় ছিলেন। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের নানাভাবে সহায়তা করেছেন।

সখিনার দাবি, একপর্যায়ে তিনি পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন। পরে কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে আসেন। আসার সময় সেখান থেকে নিয়ে আসেন এক ধারালো দা। পরে সেই দা দিয়েই নিকলীর পাঁচ রাজাকারকে কুপিয়ে হত্যা করেন। সখিনার ওই দা বর্তমানে ঢাকায় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে এবং নামফলকে সখিনা বেগমের নাম উল্লেখ আছে। একাত্তরে সখিনা বেগমের সাহসিকতা ও বীরত্বের কথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে পড়লে ১৯৯৮ সালে তাঁকে ৫০ হাজার টাকা অনুদান দেন। বর্তমানে প্রতি মাসে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা পান তিনি।

বয়সের ভারে সখিনা এখন ন্যুব্জ। বিছানা থেকে নিজে নিজে উঠে বসতে পারেন না। বিছানা থেকে উঠে বসান ভাগনি ফাইরুন্নেছা। কথা কিছুটা জড়িয়ে এলেও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতির কথা এখনো ভুলতে পারেননি তিনি। রাজাকারদের হাতে ভাগনের মৃত্যু ও তাঁর ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর নির্যাতনের কথা মনে করে কেঁদে ফেলেন সখিনা। হাত দিয়ে দেখান, কীভাবে সেদিন রাজাকারদের দা দিয়ে কুপিয়েছিলেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বইয়ের লেখক জাহাঙ্গীর আলম জাহান বলেন, তাঁর বইয়ে সখিনা বেগমের সাহসিকতার কাহিনি রয়েছে। সখিনার ভাগনে মতিউর রহমানকে যে রাজাকাররা হত্যা করেছিল, তাঁদের মধ্যে একজনকে বসু বাহিনী ধরে নিয়ে সখিনার হাতে তুলে দেয়। সখিনা তাঁকে বঁটি ও দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছেন। তবে পাঁচ রাজাকারকে কুপিয়ে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত না বলে জানান এই বইয়ের লেখক।

সখিনা চোখেও কম দেখেন। জীবনসায়াহ্নে এসে এখন আর তাঁর তেমন চাওয়া-পাওয়া নেই। শুধু অসুস্থতার এ সময়ে কেউ যদি তাঁর একটু খোঁজখবর নেয়, এতেই তিনি খুশি। সখিনা বলেন, ‘ছয় মাস ধরে ভাত খাইতে পারি না। ফলটল খাইয়া কোনো রহমে বেঁচে আছি। বয়সও অনেক হইছে, নড়াচড়া করতে পারি না। সারা দিন বিছানায় পড়ে থাকি।’

সখিনাকে দেখভাল করা ভাগনি ফাইরুন্নেছা জানান, তাঁর খালা এখন বিছানা থেকে উঠতে পারেন না। বিছানায় বসিয়ে রাখলেও ধরে রাখতে হয়। ছয় মাস ধরে ফলফলাদি আর জুস ছাড়া কিছুই খেয়ে হজম করতে পারেন না। প্রস্রাব–পায়খানাও বিছানায় করেন।

ফাইরুন্নেসা বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে খালাকে টানাটানির কারণে আমি নিজেও অসুস্থ হয়ে পড়েছি। তাঁকে দেখাশোনা করতে অনেক কষ্ট হয়। এর পরও প্রতি মাসে মুক্তিযুদ্ধের ভাতা তুলতে তাঁকে নিয়ে অনেক কষ্ট করে কোলে করে নিকলী সদরে নিয়ে যেতে হয়। তিনি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সরকারি ভাতা যে ২০ হাজার টাকা পান, এর পুরোটাই ওষুধ কিনতে চলে যায়।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।