ঢাকা১৫ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. Echt Geld Casino
  3. test2
  4. অপরাধ
  5. অর্থনীতি
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আরো
  8. এক্সক্লুসিভ
  9. খেলাধুলা
  10. জাতীয়
  11. তথ্য প্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  14. বাণিজ্য
  15. বিনোদন

বাংলাদেশ সরকারের সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমে সাম্প্রতিক সাফল্য

admin
নভেম্বর ২০, ২০২৩ ৮:১৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রুখসানা সিদ্দিকা

 

বাংলাদেশ কয়েক দশক ধরে সন্ত্রাসবাদের মতো জটিল ইস্যুর সঙ্গে লড়াই করছে। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশ সরকার সন্ত্রাসবিরোধী প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে। উন্নত গোয়েন্দা তথ্য, আইন প্রয়োগকারী অভিযান এবং আন্তর্জাতিক সহযোগিতার সংমিশ্রণের মাধ্যমে দেশটি সন্ত্রাসবাদ দমনে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে। এই প্রবন্ধটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশের সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমের মূল সাফল্যগুলো তুলে ধরেছে।

 

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের লড়াইয়ে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সাফল্যগুলোর মধ্যে একটি হলো এর কার্যকর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান। দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশেষ করে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট এবং র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) সন্ত্রাসী হুমকি নির্মূলে সফলভাবে অসংখ্য অভিযান পরিচালনা করেছে। কয়েকটি উল্লেখযোগ্য অপারেশনগুলির মধ্যে রয়েছে:

 

অপারেশন থান্ডারবোল্ট (২০১৬)

র‍্যাবের এই অভিযানে ঢাকার হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার মাস্টারমাইন্ডসহ বেশ কয়েকজন হাইপ্রোফাইল সন্ত্রাসী নিহত বা আটক হয়। এটি সন্ত্রাসীদের অনুসরণ এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার জন্য সরকারের দৃঢ়সংকল্পপ্রদর্শন করে।

 

অপারেশন টোয়াইলাইট (২০১৯)

সিটিটিসি ও র ্যাবের সঙ্গে যৌথ অভিযানে নিরাপত্তা বাহিনী দেশের বিভিন্ন হামলার জন্য দায়ী সন্ত্রাসী সংগঠন নব্য জেএমবির (জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ) মূল সদস্যদের গ্রেপ্তার করেছে। এই অভিযানটি গ্রুপের নেটওয়ার্ককে আরও ধ্বংস করে দেয় এবং তাদের ক্রিয়াকলাপকে দমন করে।

 

সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক ধ্বংস

জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক নির্মূলে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে। এই নেটওয়ার্কগুলির মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সনাক্ত করণ এবং গ্রেপ্তারে সরকারের প্রচেষ্টা তাদের কার্যক্রমকে ব্যাহত করেছে এবং সন্ত্রাসবাদের হুমকি হ্রাস করেছে। এই ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার ও বিচার একটি স্পষ্ট বার্তা দিয়েছে যে বাংলাদেশ সন্ত্রাসীদের বিচারের আওতায় আনতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

 

উন্নত গোয়েন্দা নজরদারি

বাংলাদেশ সরকার, বিশেষ করে সিটিটিসি’র মাধ্যমে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের সক্ষমতা বাড়াতে বিনিয়োগ করেছে। তারা আন্তর্জাতিক লিঙ্ক সহ সন্ত্রাসী কার্যকলাপ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের প্রচেষ্টা বাড়িয়েছে। ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো বিদেশী অংশীদারদের সাথে গোয়েন্দা বিনিময় আন্তঃদেশীয় সংযোগযুক্ত সন্ত্রাসীদের ট্র্যাক এবং ধরার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে।

 

আন্তর্জাতিক সহযোগিতা

বাংলাদেশ কার্যকরভাবে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক সহযোগিতার প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করে। সরকার গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদান, যৌথ অভিযানে অংশ নেওয়া এবং বৈশ্বিক লিঙ্কযুক্ত সন্ত্রাসীদের ট্র্যাকিং এবং ধরার ক্ষেত্রে সহায়তা চাইতে বিদেশী দেশগুলির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছে। এ ধরনের সহযোগিতা বাংলাদেশের সন্ত্রাসবিরোধী প্রচেষ্টাকে শক্তিশালী করেছে এবং সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাফল্যে অবদান রেখেছে।

 

মৌলবাদ এবং নিয়োগের সরঞ্জাম হিসাবে অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলির উত্থান বিশ্বব্যাপী একটি উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে। বাংলাদেশ উগ্রবাদী কনটেন্ট মনিটরিং ও ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে অনলাইন মৌলবাদ মোকাবেলায় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তরুণদের উপর চরমপন্থী মতাদর্শের প্রভাব সীমিত করে অনলাইন প্রোপাগান্ডা সনাক্ত এবং প্রতিহত করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে।

 

সন্ত্রাসবিরোধী আইন

বাংলাদেশ তার সন্ত্রাসবিরোধী আইন আপডেট করেছে এবং সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় তার আইনি কাঠামো শক্তিশালী করার জন্য নতুন আইন প্রবর্তন করেছে। সরকার ২০০৯ সালে সন্ত্রাসবিরোধী আইন প্রবর্তন করে, যা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের তদন্ত, বিচার এবং শাস্তি দেওয়ার জন্য একটি বিস্তৃত আইনি ব্যবস্থা সরবরাহ করে। এই আইনি কাঠামো সন্ত্রাসীদের বিচারের আওতায় আনতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। এই আইনি সংস্কারগুলি আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলিকে যথাযথ প্রক্রিয়া এবং মানবাধিকার সুরক্ষা নিশ্চিত করার পাশাপাশি সন্ত্রাসী এবং তাদের সমর্থকদের বিরুদ্ধে আরও সিদ্ধান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে সক্ষম করেছে।

 

কমিউনিটি এনগেজমেন্ট এবং সচেতনতা

বাংলাদেশ সরকার সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সম্প্রদায়ের সম্পৃক্ততা এবং জনসচেতনতার গুরুত্ব স্বীকার করেছে। তারা সংযম ও সহিষ্ণুতার বার্তা প্রচারের জন্য আউটরিচ প্রোগ্রাম, সচেতনতা প্রচারাভিযান এবং ধর্মীয় নেতাদের সাথে সহযোগিতার সাথে জড়িত স্থানীয় সম্প্রদায়ের সাথে বিশ্বাস এবং সহযোগিতা গড়ে তোলার উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে। তৃণমূল পর্যায়ে উগ্রবাদ ও চরমপন্থা প্রতিরোধে এসব প্রচেষ্টা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশের সাফল্য তার নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের অবিচল অঙ্গীকারকে প্রতিফলিত করে। কার্যকর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান, সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক ধ্বংস, উন্নত গোয়েন্দা ও নজরদারি, আন্তর্জাতিক সহযোগিতা, অনলাইন মৌলবাদ মোকাবেলা, সন্ত্রাসবিরোধী আইন এবং কমিউনিটি সম্পৃক্ততার মাধ্যমে বাংলাদেশ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে।

 

এসব সাফল্য প্রমাণ করে যে, হুমকির বিবর্তিত প্রকৃতি বিবেচনায় নিয়ে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি বহুমুখী ও অভিযোজনযোগ্য। বাংলাদেশ যখন এই অর্জনগুলি অব্যাহত রেখেছে, তখন সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক সংগ্রামে অনুরূপ চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি অন্যান্য দেশগুলির জন্য এটি মূল্যবান শিক্ষা প্রদান করে।

 

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, অপরাধবিজ্ঞান ও পুলিশ বিজ্ঞান বিভাগ, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।