ঢাকা২২ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. Echt Geld Casino
  3. test2
  4. অর্থনীতি
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আরো
  7. এক্সক্লুসিভ
  8. খেলাধুলা
  9. জাতীয়
  10. তথ্য প্রযুক্তি
  11. দেশজুড়ে
  12. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  13. বাণিজ্য
  14. বিনোদন
  15. মতামত
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাণিজ্যিকভাবে জ্বালানি তেল উত্তোলনের পথে বাংলাদেশ

admin
ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২৪ ১:৫৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাংলাদেশ বাণিজ্যিকভাবে জ্বালানি তেল আবিষ্কারের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে। এরই মধ্যে সিলেট- ১০ নম্বর কূপ থেকে জ্বালানি তেলের সন্ধান পাওয়া গেছে। এখন এ বিষয়ে যাচাই-বাছাই চলছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে এই কূপে কী পরিমাণ তেল পাওয়া যাবে এবং এখানে রিজার্ভ কী পরিমাণ আছে তা আনুষ্ঠানিকভাবে বিদ্যুৎ, জ্বালানি এবং খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হবে। গতকাল সিলেট- ১০ নম্বর কূপ খনন প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

গতকাল সরেজমিন সিলেট- ১০ নম্বর কূপ খনন প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন শেষে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা এরই মধ্যে এই কূপে ড্রিল করেছি। বর্তমানে আরেকটি ড্রিল করার প্রস্তুতি চলছে। এই কূপে আমরা সর্বোচ্চ গভীরে পৌঁছেছি এবং সবচেয়ে বেশি গ্যাসের প্রেসার, ৬০০০ পিএসআই পেয়েছি। আমরা আশাবাদী এই কূপ হবে বাংলাদেশে জ্বালানি তেল আবিষ্কারের ক্ষেত্রে বাণিজ্যিকভাবে কার্যকরী একটি প্রকল্প। এই কূপ ঘিরে আমাদের বিরাট পরিকল্পনা। এর সঙ্গে আমাদের বিশেষজ্ঞরা আছেন। তারা সবাই পরীক্ষিত বিশেষজ্ঞ।অনেকে বলছেন ১১ মিলিয়ন ব্যারেল আবার কেউ কেউ বলছেন এখানে ১৫ মিলিয়ন ব্যারেল তেলের মজুত আছে।
সিলেট গ্যাস ফিল্ড কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, সিলেটে- ১০ নম্বর কূপটি খুবই সৌভাগ্যের। এখানে গ্যাসের চাপ ৬০০০ পিএসআই পাওয়া গেছে। পরীক্ষার সময় ২৫ মিলিয়ন উত্তোলন করার সময় চাপ ৩২০০ পিএসআই পাওয়া গেছে। অনেক কূপেই উত্তোলনের সময় চাপ কমে যায়, কিন্তু সিলেট -১০ খুবই ব্যতিক্রম। সিলেট গ্যাস ফিল্ড কোম্পানির প্রাথমিক হিসাব বলছে, এই কূপে তেলের মজুত প্রায় ৮ মিলিয়ন ব্যারেল। যার মূল্য ৭ হাজার কোটি টাকা।
জানা যায়, প্রাথমিকভাবে এই কূপে এপিআই গ্রাভিটি ২৯.৭ ডিগ্রি পাওয়া গেছে। পরীক্ষা সম্পন্ন হলে তেলের মজুত সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।
এর আগে কূপ থেকে উত্তোলিত তেল পরীক্ষার জন্য বুয়েট, ইস্টার্ন রিফাইনারীসহ তিনটি ল্যাবে পাঠানো হয়। রেজাল্ট পাওয়া গেলে আরও বিস্তারিত ধারণা পাওয়া যাবে। দিনে ৫০০ থেকে ৬০০ ব্যারেল তেল পাওয়ার আশা করা হচ্ছে। কূপটির গ্যাস স্তরগুলোর অবস্থান হচ্ছে ২৪৬০ থেকে ২৪৭৫ মিটার, ২৫৪০ থেকে ২৫৭৬ মিটার ও ৩৩০০ মিটার গভীরতায়। গ্যাসের মজুত হতে পারে ৪৩.৬ থেকে ১০৬ বিলিয়ন ঘনফুট। সিলেট গ্যাস ফিল্ড কোম্পানি বর্তমানে দৈনিক ১১৫.২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করছে। কৈলাশটিলা ৮, সিলেট ১০ এবং সিলেট-১০এক্স, ও সিলেট-১১-সহ বেশ কিছু প্রকল্প চলমান রয়েছে। কোম্পানিটি আশা করছে চলমান কার্যক্রম ২০২৫ সাল নাগাদ শেষ হলে দৈনিক ২৫০ থেকে ২৮০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করা সম্ভব হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।