ঢাকা১৬ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. ! Без рубрики
  2. Echt Geld Casino
  3. test2
  4. অপরাধ
  5. অর্থনীতি
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আরো
  8. এক্সক্লুসিভ
  9. খেলাধুলা
  10. জাতীয়
  11. তথ্য প্রযুক্তি
  12. দেশজুড়ে
  13. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  14. বাণিজ্য
  15. বিনোদন

২৮ অক্টোবর সমাবেশ নিয়ে কর্মীদের কী নির্দেশনা দিয়েছে হাই কমান্ড

admin
অক্টোবর ২১, ২০২৩ ১১:৫৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকার পতনের এক দফা কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আগামী ২৮ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। সেই সমাবেশকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে তৃণমূল পর্যায়ে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের নির্দেশনাও পাঠিয়েছে দলের হাই কমান্ড। বিএনপি চাচ্ছে ২৮ অক্টোবর থেকেই রাজধানী ঢাকা ঘিরে আন্দোলনের ছক তৈরি করতে। সে লক্ষে ইতিমধ্যে মাঠ পর্যায়ে সংগঠিত হতে শুরু করেছে বিএনপি ও তার সহযোগি সংগঠনগুলো।

বিএনপির বিভিন্ন জেলা কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেন্দ্র থেকে তাদের কাছে বার্তা দেওয়া হয়েছে যে, যেকোনো মূল্যে সরকারের পতন ঘটাতে হবে। এ জন্য সবধরণের প্রস্তুতি নিয়ে যেন তারা ঢাকায় আসেন। বিশেষ করে ২৮ অক্টোবরের সমাবেশের পর নেতাকর্মীরা যেন প্রয়োজনে রাস্তায় বসে পড়তে পারে সেই প্রস্তুতি নিয়ে আসতে বলা হয়েছে।

তবে সারাদেশ থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢাকায় আসার প্রস্তুতির পাশাপাশি নানামুখি হিসেব নিকেশও চলছে। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সামনে গত বছরের ১০ ডিসেম্বরের ফাঁকা আওয়াজের কথাও মনে পড়ছে। সরকার পতনের কথা বলে সেই দিন বিএনপি রীতিমত পিছু হটেছিলো। ২৮ অক্টোবর মহাযাত্রার কথা বলে কেন্দ্রীয় নেতারা পিছু হটতে পারেন বলেও আশঙ্কা করছেন দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। তাই এই মহাসমাবেশ নিয়ে আশঙ্কা এবং হতাশা কাজ করছে তাদের মধ্যে। মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের ধারণা, শেষ পর্যন্ত এবারও ১০ ডিসেম্বরের মত অবস্থা হতে পারে। মাঠ পর্যায়ে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

বরিশালের একজন বিএনপি নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, প্রত্যেকবারই বলা হয় সরকার পতনের চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই চূড়ান্ত আন্দোলনের চেহারা গত এক-দেড় বছরে দেখতে পাইনি। তিনি বলেন, এর আগেও বহুবার চূড়ান্ত আন্দোলনের আন্দোলনের ডাক দিয়ে নেতাকর্মীদের বিপদে ফেলা হয়েছে। এবার কি হবে জানি না।

বরিশাল মহানগর বিএনপির অপর এক নেতা বলেন, আমরা মহাসমাবেশে যোগ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। তবে সংঘবদ্ধভাবে যাবো না কি বিচ্ছিন্নভাবে যাবো তা এখনই বলতে পারছি না। কেন্দ্রের নির্দেশনা আছে চূড়ান্ত আন্দোলনের প্রস্তুতি নিয়ে ঢাকায় যাবার।

মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা ২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশে যোগ দিতে শনিবার বিকেলেই নিজেদের মধ্যে বৈঠকে বসার কথা। সেখানে কেন্দ্রের নির্দেশনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হবে জানিয়ে জেলা বিএনপির একজন নেতা বলেন, আমরা সমাবেশে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। তবে সবাই বিচ্ছিন্নভাবে যাবো। ঢাকায় দীর্ঘ সময় অবস্থান করে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে প্রস্তুতি নিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা আছে। কিন্তু মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা আস্থা রাখতে পারছেন না দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের ওপর।

তারা বলছেন, এর আগেও একাধিকবার এরকম বলা হয়েছে। গত বছরের ১০ ডিসেম্বর সরকারের পতন হয়ে যাবে বলে হুমকি দিয়েছিলেন নেতারা। শেষ পর্যন্ত কিছুই হয়নি। এবারও যে কিছু হবে এমনটা মাঠের কর্মীরা বিশ্বাস করতে পারছেন না।

বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত বগুড়া থেকে মহাসমাবেশে যোগ দিতে স্থানীয় পর্যায়ে নানামুখি প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার বগুড়ার নাজ গার্ডেনে সভাও করেছে দলটি। স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে, পুলিশি তল্লাশি এড়াতে ২৮ অক্টোবরের সমাবেশে যোগ দিতে মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কারসহ ছোট ছোট গাড়ি ভাড়া করে বিচ্ছিন্নভাবে ঢাকা অভিমুখে আসার প্রস্তুতি নিয়েছে দলের নেতাকর্মীরা। এর বাইরে বাস, ট্রেন, মোটরসাইকেলেও আসবে অনেকে। ইতিমধ্যে অনেক নেতাকর্মী ঢাকায় ঢুকতে শুরু করেছে।

বগুড়ার বিএনপি নেতাকর্মীরা মনে করে, এবার সরকারের পতন কেউ ঠেকাতে পারবে না। তবে দলটির স্থানীয় পর্যায়ের একেবারে সাধারণ নেতাকর্মীরা মনে করেন, জিনিষপত্রের দাম বৃদ্ধির কারণে মানুষ সরকারের ওপর অসস্তুষ্ট হলেও সরকারের পতন হবে না।

২৮ অক্টোবরের সমাবেশ নিয়ে বিএনপির প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে, বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি রেজাউল করিম বাদশা বলেন, আমরা সমাবেশে যোগ দেয়ার সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি। সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি ঢাকার রাজপথ নিজেদের দখলে রাখবে। সেই রকম প্রস্তুতি নিয়েই আমরা ঢাকায় যাবো।

সিলেট জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঢাকা সমাবেশে যোগ দেয়ার। সমাবেশ উপলক্ষে কমপক্ষে দুই হাজার নেতাকর্মী সিলেট থেকে ঢাকায় আসবেন-এমনটা জানিয়ে জেলা বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, দলবদ্ধভাবে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কৌশল হিসেবে তারা বলছেন, সবাই বিচ্ছিন্নভাবে গিয়ে সমাবেশে যোগ দিবে।

জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বলেছেন, সমাবেশে যোগ দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ২৮ অক্টোবরের আগেই সবাই ঢাকায় পৌঁছে যাবে। তিনি আরও জানান, কেন্দ্রের পাশাপাশি জেলা, উপজেলা পর্যায়েও সরকারি বিরোধী বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হবে।

অবশ্য সিলেটের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে ঢাকার সমাবেশ নিয়ে উচ্ছাস খুব একটা দেখা যাচ্ছে না। বরং তারা দলের আন্দোলন নিয়ে রীতিমিত হতাশ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিলেট মহানগর বিএনপির একাধিক নেতাকর্মী জানিয়েছেন, ১৪ বছরেও সরকারের পতন ঘটানো যায়নি। এখন সমাবেশ করে যে বড় কিছু হয়ে যাবে এমনটা মনে হয় না। তবে, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন অবশ্য ২৮ অক্টোবরের সমাবেশে যোগ দেয়ার প্রস্তুতি নিয়ে এখন কিছু বলতে নারাজ। তিনি জানিয়েছেন, ২৮ অক্টোবর এখনও অনেক দূর। সময় আসলে সব ঠিক করা হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।